জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা উরফে সন্তু লারমা একজন জাতীয় বেঈমান | সিএইচটি-ব্রেকিং নিউজ ডট কম জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা উরফে সন্তু লারমা একজন জাতীয় বেঈমান | সিএইচটি-ব্রেকিং নিউজ ডট কম );

বুধবার, ২৪ Jul ২০১৯, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
cht-breakingnews.com এ আপনাকে স্বাগতম। পরীক্ষামূলক সম্প্রচার বেটা ভার্ষণ চলছে......
ব্রেকিং নিউজ :
খাগড়াছড়িতে কিশোরী ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৩জনের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি পার্বত্যমন্ত্রীর সাথে সন্তু লারমার বৈঠক বৌদ্ধ পূর্ণিমা নিয়ে সতর্ক অবস্থানে রাঙামাটির পুলিশ রাঙামাটির হাসপাতালগুলোতে শূন্যপদে দ্রুত লোক নিয়োগের সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি রাঙামাটি শহরে সিএনজিতে ফেলে যাওয়া যাত্রীর ৫ লক্ষ টাকার চেক ফিরিয়ে দিলেন অটোরিক্সা চালক ফনী মোকাবেলায় জেলা প্রশাসকের প্রস্তুতিমূলক সভা; দুর্যোগকালীন জরুরি ভিত্তিতে সেবা পেতে ফোন নম্বরগুলো হলো.. আমাকে মেরে যদি আঞ্চলিক সশস্ত্র সংগঠনগুলোর দাবি পূরণ হয়, তাহলে তাদের বুলেট আমি হাসি মুখে বরণ করবো- শহীদুজ্জামান মহসিন রোমান রাঙামাটিতে টিভি কাপ উন্মুক্ত নাইট সার্কেল ক্রিকেট টুর্নামেন্টের শুভ উদ্বোধন নানিয়ারচর জোন কমান্ডারের বিদায় ও নবাগত জোন কমান্ডারের পরিচিতি উপলক্ষে মত বিনিময় সভা রক্তদান কর্মসুচীর উদ্বোধন মধ্যদিয়ে রাঙামাটিতে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস পালন
জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা উরফে সন্তু লারমা একজন জাতীয় বেঈমান

বাঘাইছড়ি ও বিলাইছড়িতে হত্যাকান্ডের ঘটনায় রাঙামাটি প্রতিবাদ সমাবেশে

জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা উরফে সন্তু লারমা একজন জাতীয় বেঈমান

শাহ আলম, সিএইচটি ব্রেকিং নিউজ ডট কম, রাঙমাটি। পার্বত্য জেলার রাঙামাটির বাঘাইছড়ি ও বিলাইছড়িতে সন্ত্রাসীদের ব্রাশ ফায়ারে ৮জন কে নির্মমভাবে গুলি করে হত্যার ঘটনায় রাঙামাটিতে বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী প্রতিবাদ সমাবেশে ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে ফাঁসির দাবি জানিয়ে কাউখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য অংশু ছাইন চৌধুরী বলেছেন, সুরেশ কুমার তঞ্চঙ্গ্যার হত্যার জবাব জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় সন্তু লারমাকে দিতে হবে। এছাড়াও এই পার্বত্য অঞ্চলে গুম, হত্যা, অপহরণ, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজিরও জবাব দিতে হবে।

সন্তু লারমা একদিকে শান্তি চুক্তির কথা বলে। অন্যদিকে পার্বত্য অঞ্চলে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করে রেখেছেন। আমাদের এখন খারাপ লাগে। শান্তি চুক্তির সম্পাদনের জন্য আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা রাজপথে না াকতো তাহলে ঐতিহাসিক পার্বত্য চুক্তি সম্পাদিত হতো না। আপনিও আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান হতে পারতেন না। এই শান্তি চুক্তির জন্য আওয়ামীলীগের অনেক নেতা-কর্মীর গুম, হত্যা, অপহরণ, মামলা-হামলাসহ হত্যার শিকার হতে হয়েছে। আর আজকে আমাদের বিরুদ্ধে ও সাধারণ জনগণকে গুম, হত্যা, অপহরণসহ হত্যা করছেন। জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় সন্তু লারমা শুধু পার্বত্য অঞ্চলের বেঈমান নয় তিনি জাতীয় বেঈমান।

আজ বুধবার সকাল ১১টায় জেলা আওয়ামীলীগের উদ্দ্যেগে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এসব মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)’র সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় সন্তু লারমা কে জানাতে চাই সুরেশ কুমার তঞ্চঙ্গ্যার মত একজন নিরহ কর্মীকে হত্যার করে পার্বত্য জেলা রাঙামাটি থেকে আওয়ামীলীগ কে নিশ্চিহ্ন করা যাবে না।

গত ৩ শে ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে পার্বত্যবাসী আওয়ামীলীগকে তিনটি পার্বত্য জেলায় বিপুল ভোটে জয়ী করেছে। কারণ পার্বত্যবাসীরা চাঁদাবাজি চায় না, গুম, হত্যা, অপহরণ, সন্ত্রাস চায় না। শান্তি, সমম্প্রীর ও উন্নয়নের জন্য একাদশ জাতীয় নির্বাচনে পাহাড়বাসী আওয়ামীলীগকে রায় দিয়েছে। এই রায়ের মাধ্যমে আপনি তথা (পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)’র সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় সন্তু লারমা জানান দিয়েছে। তাপরেও আপনি (সন্তু লারমা) খুন, হত্যার কাজ করছেন।

প্রতিবাদ সমাবেশে রাঙামাটি ২৯৯নং আসনের সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার এমপি, রাঙামাটি জেলা আওয়ামীগের সহ-সভাপতি হাজী কামাল উদ্দিন, নিখিল কুমার চাকমা, হাজী সাধারণ সম্পাদক মুছা মাতব্বর, সাবেক রাঙামাটি ৩৩৩নং আসনের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মমতাজুল হক, কাউখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জনাব অংসু প্রু চৌধুরী, রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী রাঙামাটি সদর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান রোমানসহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

অংশু আরো বলেন, মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আমরা সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের জানাতে চাই, আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আছে, তার পরেও যদি আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীসহ সাধারণ জনগণ সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত হয় তাহলে ক্ষমতাশীলসহ জাধারণ মানুষের নিরাপত্তা কোথায়? পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)’র কাছে আজ সাধারণ মানুষ জিম্মি হয়ে পড়েছে। পার্বত্যবাসী এই জিম্মি দশা থেকে মুক্তি চায়। তাই তিনি প্রশাসনকে পার্ব্য অঞ্চল থেকে চাঁদাবাজি গুম, হত্যা, অপহরণ, সন্ত্রাস দমনে কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আহবান জানান।

এর আগে রাঙামাটি পৌরসভা প্রাঙ্গণ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের কাঁঠালতলী, বনরুপা হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। পরে সেখানে সমাবেশে মিলিত হয় প্রতিবাদকারীরা। এসময় জেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও শ্রমিক সংগঠনসহ সাধারণ মানুষ সমাবেশে যোগ দেয়। সমাবেশ চলাকালীন একঘন্টারো বেশি যানচলাচল বন্ধ থাকে। এত গাড়ী না পেয়ে বিপাকে পড়ে সাধারণ জনগণ।

সংবাদটি শেয়ার করুন
খবরটি প্রিন্ট করুন খবরটি প্রিন্ট করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 cht-breakingnews.com
Developed BY Jyoti